ইউটিউবে কায়দা শিখে এটিএম ভাঙার চেষ্টা ধুপগুড়িতে, সাইরেন বেজে ওঠায় পিছু হটল দুষ্কৃতীরা

রবিবার জলপাইগুড়ি জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গ্রামীণ) ওয়াংদেন ভুটিয়া এক সাংবাদিক সম্মেলন করে জানান, গত ১২ই ফ্রেবুয়ারি গভীর রাতে ধুপগুড়ি শহরের দু’টি এটিএম লুঠের চেষ্টা হয়েছিল। এরমধ্যে একটি বেসরকারি ব্যাঙ্ক এবং অপরটি রাষ্ট্রায়ত্ব ব্যাঙ্কের এটিএম।

দ্য ওয়াল ব্যুরো, জলপাইগুড়ি: ইউটিউব দেখে এটিএম খোলার কায়দা শিখে এটিএম লুঠের ফন্দি। তবে সাইরেন বেজে ওঠায় শেষরক্ষা হল না। চম্পট দিতে হল দুষ্কৃতীদের।

১২ ফেব্রুয়ারি রাতে ধুপগুড়ি শহরের বুকে পরপর দু’টি এটিএম ভেঙে লুঠের চেষ্টা করে দুষ্কৃতীরা। সেই সময় একটি এটিএম এর সাইরেন বেজে ওঠায় সেখান থেকে চম্পট দেয় লুঠেরার দল। খবর পায় পুলিশ। শুরু হয় তদন্ত। তদন্তে নেমে সিসিটিভি ফুটেজ সংগ্রহ করে ধুপগুড়ি থানার পুলিশ। তদন্ত করে গ্রেফতার করা হয় দুই দুষ্কৃতীকে। পুলিশের দাবি, ধৃতরা জেরায় স্বীকার করেছে ইউটিউব দেখেই এটিএম খোলার কায়দা শিখেছিল তারা।

রবিবার জলপাইগুড়ি জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গ্রামীণ) ওয়াংদেন ভুটিয়া এক সাংবাদিক সম্মেলন করে জানান, গত ১২ই ফ্রেবুয়ারি গভীর রাতে ধুপগুড়ি শহরের দু’টি এটিএম লুঠের চেষ্টা হয়েছিল। এরমধ্যে একটি বেসরকারি ব্যাঙ্ক এবং অপরটি রাষ্ট্রায়ত্ব ব্যাঙ্কের এটিএম।

দুষ্কৃতীরা যখন রাষ্ট্রায়ত্ব ব্যাঙ্কের এটিএমটি খোলার চেষ্টা করছিল তখনই সেই এটিএমের সাইরেন বেজে ওঠে। তখন সেখান দিয়ে এক রিক্সাচালক যাচ্ছিলেন। তিনি ঘটনা দেখতে পেয়ে পাশেই চলা একটি কীর্তনের আসরে গিয়ে খবর দেন। সেখানকার লোকেরা ছুটে এসে পুলিশকে খবর দেয়।

পুলিশ সিসিটিভি ফুটেজ সংগ্রহ করে তদন্তে নামার ২৪ ঘন্টার মধ্যেই দুই জনকে গ্রেফতার করে। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বলেন, ‘‘ধৃতদের জুড়াপানি এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়। ধৃতদের নাম বিক্রম বিশ্বাস, ও কমল চন্দ। বিক্রম ধূপগুড়ি এলাকার বাসিন্দা। কমলের বাড়ি নাথুয়া এলাকায়। ধৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। ইউটিউব দেখে এটিএম ভাঙার চেষ্টা করে তারা। এর পেছনে আর কারা রয়েছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।’’ সিসিটিভি ফুটেজের সাহায্য নিয়েই যে তদন্তে সাফল্য এসেছে তাও জানান তিনি।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More