অবশেষে বাংলায় এইমস হাসপাতালের আউটডোর শুরু হল, রোগী ভর্তি নেওয়া শুরু হবে এ বছরই

কর্তৃপক্ষের আশা এপ্রিল-মে মাসে আরও বহির্বিভাগ চালু করা যাবে। ইনডোর পরিষেবা পেতে একটু দেরি হবে। তবে এই বছরের মধ্যেই চালু হতে পারে ইনডোর পরিষেবা। কেন্দ্রীয় এই স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠানের যাত্রাশুরুতে আশার আলো দেখছেন বিভিন্ন জটিল রোগে আক্রান্ত রোগী ও তাঁদের পরিবার।

দ্য ওয়াল ব্যুরো, নদিয়া: কথা ছিল ২০২১ এর জানুয়ারি মাস থেকেই চালু হবে। সেই অনুযায়ীই  বুধবার থেকে সর্বসাধারণের জন্য খুলে গেল কল্যাণী এইমস (অল ইন্ডিয়া ইনস্টিউট অফ্ মেডিক্যাল সায়েন্স)। আপাতত আটটি আউটডোরে  চালু হল রোগী পরিষেবা। প্রতিদিন একশো থেকে দু’শো রোগী দেখা হবে। চিকিৎসকদের পরামর্শ পেতে নাম রেজিস্ট্রেশন করাতে হবে। ধীরে ধীরে পরিকাঠামো বাড়ানো হলে আরও বেশি সংখ্যক রোগী দেখা সম্ভব হবে বলে জানিয়েছেন এইমস কর্তৃপক্ষ।

কর্তৃপক্ষের আশা এপ্রিল-মে মাসে আরও বহির্বিভাগ চালু করা যাবে। ইনডোর পরিষেবা পেতে একটু দেরি হবে। তবে এই বছরের মধ্যেই চালু হতে পারে ইনডোর পরিষেবা। কেন্দ্রীয় এই স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠানের যাত্রাশুরুতে আশার আলো দেখছেন বিভিন্ন জটিল রোগে আক্রান্ত রোগী ও তাঁদের পরিবার।

কল্যাণী শহর থেকে এক কিলোমিটার দূরে বসন্তপুরে ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কের কাছে ১৭৯.৮২ একর জমির উপরে তৈরি হয়েছে এইমস হাসপাতাল। ২০১৬ সালে হাসপাতালের ভবন তৈরির কাজ শুরু হয়েছিল। এই স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠান তৈরির জন্য বসন্তপুর মৌজায় জমি চিহ্নিত করেছিল রাজ্য সরকার। সেই জমিতে গড়ে উঠেছে এইমস।

ভবন তৈরির কাজ শেষ না হওয়ায় এতদিন ক্লাস হচ্ছিল কল্যাণীর কলেজ অফ মেডিসিন অ্যান্ড জেএনএম হাসপাতালে। এখন ভবন তৈরির কাজ শেষ হওয়ায় জেএনএম হাসপাতালের পরিবর্তে নিজস্ব ভবনেই পঠনপাঠন শুরু হয়ে গিয়েছে ডাক্তারির পড়ুয়াদের।

এইমসের অধিকর্তা রামজি সিং জানান, এখন আটটি বিভাগে একজন করে চিকিৎসক আছেন। তাঁরা সপ্তাহে পাঁচদিন অর্থাৎ সোমবার থেকে শুক্রবার আউটডোরে রোগী দেখবেন। প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি আনার কাজও শুরু হয়ে গেছে। আপাতত জেনারেল মেডিসিন, জেনারেল সার্জারি, গায়নোকলজি, শিশুবিভাগ, চর্ম-চক্ষু-ইএনটি বিভাগ চালু করা হল। চালু হল মনোরোগের বিভাগও। সকাল ৯ টা থেকে দুপুর ১ টা পর্যন্ত প্রতিদিন একশো থেকে দু’শো রোগী দেখা হবে। ধীরে ধীরে খোলা হবে অন্য বিভাগগুলিও।

রাজ্যে কোথায় এইমসের ধাঁচে হাসপাতাল তৈরি হবে তা নিয়ে দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে চলে টানাপড়েন। কংগ্রেস নেত্রী দীপা দাশমুন্সি রায়গঞ্জে এইমস করার জন্য দীর্ঘ লড়াই চালিয়েছেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত নদিয়ায় এই হাসপাতাল তৈরির সিদ্ধান্ত নেন বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। জমিও দেওয়া হয়। অবশেষে ২০১৬ সালে শুরু হয় কাজ।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More