ডেটিং সাইটের নামে লক্ষ লক্ষ টাকা প্রতারণা, শিলিগুড়ি থেকে তেলেঙ্গানা পুলিশের জালে ৭

শিলিগুড়ি শহরের বিভিন্ন বহুতল বাড়ি ও শপিং মলে অফিস রয়েছে একাধিক কল সেন্টারের। তেলেঙ্গানার সাইবেড়াবাদ মেট্রোপলিটন পুলিশের সাইবার ক্রাইমের ছয় সদস্যের প্রতিনিধি দল শনিবার থেকেই শিলিগুড়ির বিভিন্ন এলাকায় প্রতারকদের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে।

দ্য ওয়াল ব্যুরো, শিলিগুড়ি: কিছুদিন ধরেই শহরজুড়ে কলসেন্টারের আড়ালে চলছিল ফ্রেন্ডশিপ ক্লাব, ডেটিং সাইট। আর এর প্রলোভন দেখিয়ে রমরমিয়ে চলছিল প্রতারণার চক্র। ভিনরাজ্যের পুলিশ তেমনই এক চক্রের সাতজনকে গ্রেফতার করল।

শনিবার শিলিগুড়ির মাটিগাড়া ও ভক্তিনগর থানা এলাকায় অভিযান চালায় তেলেঙ্গানার সাইবেড়াবাদ সাইবার ক্রাইম থানার পুলিশ৷ গ্রেফতার করা হয় অজয়কুমার শাহ, জীতেন্দ্রকুমার পণ্ডিত, বিজয় শাহ, মহম্মদ নুর আলম, বিনোদ শাহ, রাকেশ কুমার ও সজন হালদারকে। এদের মধ্যে বিজয় শাহ, মহম্মদ নুর আলম ও বিনোদ শাহকে ট্রানজিট রিমান্ডে সাইবেড়াবাদ নিয়ে গিয়েছে সেখানকার পুলিশ। বাকিদের নোটিস দিয়ে পরে ডাকা হবে। মানুষের যৌন চাহিদাকে হাতিয়ার করেই এই চক্রটি শিলিগুড়ি এবং তার পার্শ্ববর্তী এলাকায় প্রতারণার জাল ছড়িয়েছিল বলে জানিয়েছে পুলিশ।

শিলিগুড়ি শহরের বিভিন্ন বহুতল বাড়ি ও শপিং মলে অফিস রয়েছে একাধিক কল সেন্টারের। তেলেঙ্গানার সাইবেড়াবাদ মেট্রোপলিটন পুলিশের সাইবার ক্রাইমের ছয় সদস্যের প্রতিনিধি দল শনিবার থেকেই শিলিগুড়ির বিভিন্ন এলাকায় প্রতারকদের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে। সাইবেড়াবাদ সাইবার ক্রাইম থানার ইন্সপেক্টর রবীন্দ্র রেড্ডি জানান, কলসেন্টারের আড়ালে ডেটিং অ্যাপে লক্ষাধিক টাকার প্রতারণার অভিযোগ জমা পড়েছে। সেই অভিযোগের ভিত্তিতেই শিলিগুড়িতে বিভিন্ন জায়গায় তল্লাশি শুরু করেছেন তাঁরা। শিলিগুড়ি শহর ও লাগোয়া মাটিগাড়া এবং ভক্তিনগর এলাকাতেও হানা দেয় পুলিশ৷

ধরপাকড় শুরু হতেই শহরের ছোট বড় অবৈধ কলসেন্টারের মালিকেরা রাতারাতি গা ঢাকা দিয়েছে বলে খবর৷ পুলিশ জানিয়েছে সাত জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তেলেঙ্গানা পুলিশের লিস্টে রয়েছে শহরের কলসেন্টারের কিংপিনদের নামও৷ যাদের মধ্যে অন্যতম সন্টু দাস, দেবাশিস মুখার্জি–সহ আরও অনেকে। শহরের এক বধূর নামও রয়েছে ‌এই তালিকায়। তাঁদের খোঁজে তল্লাশি চলছে।

তেলেঙ্গানা পুলিশ সূত্রেই জানা গেছে, বেঙ্গালুরু থেকেই নিয়ন্ত্রণ করা হত এই কলসেন্টারগুলি। হায়দরাবাদেও ঘাঁটি রয়েছে তাদের। সেখান থেকেই শিলিগুড়ির লিঙ্ক খুঁজে পায় পুলিশ। রবীন্দ্র রেড্ডি বলেন, ‘‘ডেটিং অ্যাপের মাধ্যমে কয়েক লক্ষ টাকা প্রতারণা করা হয়েছে। শিলিগুড়ির ডিসিপি, এসিপির সাহায্যে বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়েছে। বাকিদেরও গ্রেফতার করা হবে।’’

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More