লুচি-আলুরদমের গন্ধে ম-ম করছে হাওড়ার গ্রাম, ভোট উৎসবে একাকার তৃণমূল-বিজেপি

দ্য ওয়াল ব্যুরো, হাওড়া: ভোট চলছে। তবে উত্তাপ নেই। বরং যেন উৎসব। বাতাসে লুচি ভাজার গন্ধ। ম-ম করছে কষা আলুরদমের গন্ধেও। ভোট দিতে যাওয়ার আগে বা পরে ভোটাররা যে যাঁর মতো খেয়ে নিচ্ছেন পেট ভরে। কেউ বিজেপির ঘরে, তো কেউ তৃণমূলের ঘরে!

জগৎবল্লভপুর বিধানসভা এলাকার জাবদাপোতা গ্রাম। গ্রামে ঢুকলে হঠাৎই মনে হবে বিয়েবাড়ির অনুষ্ঠান হচ্ছে। গ্রামের মহিলা ও পুরুষরা দল বেঁধে গরম গরম লুচি ভাজছেন। সঙ্গে রান্না হচ্ছে কষা আলুরদম। তৃণমূল ও বিজেপি দু’পক্ষই লুচি আলুরদম তৈরি করেছেন বুথে আসা ভোটার ও তাঁদের পরিবারের জন্য।

বুথ থেকে একশো মিটার দূরত্বের মধ্যে এভাবে কি রান্না করে ভোটারদের খাওয়ানো যায়? এই প্রশ্ন ওঠা স্বাভাবিক। খাবার দিয়ে ভোটারদের প্রভাবিত করা হচ্ছে, এমন অভিযোগও উঠতেই পারে। কিন্তু এ নিয়ে কারও কোনও অভিযোগ নেই। কারণ দু’পক্ষই জানাল এটাই এই গ্রামের রীতি। যা চলে আসছে বছরের পর বছর ধরে।

এলাকার ১৭৩ নম্বর বুথের বিজেপি সভাপতি সুরেশ কাঞ্জি বলেন, “এই গ্রামে দিন আনা দিন খাওয়া মানুষদের বসবাস। ভোটের দিনটা তাঁরা সবাই একসঙ্গে হয়ে আনন্দ করেন। খাওয়াদাওয়াও হয়। এতে ভোটারদের প্রভাবিত করার কিছু নেই।” তৃণমূল নেতা শান্তি নাথ বলেন, “গরমের মধ্যে গ্রামের মানুষরা ভোট দিতে আসেন। অনেকেই কাজ ফেলে আসেন ভোট দিতে। তাই তাঁদের জন্য এই ব্যবস্থা।”

ওই গ্রামের বাসিন্দা গৌতম মাখাল বলেন, “ছোটবেলা থেকেই দেখে আসছি প্রতি ভোটেই খাবার দেওয়া হয়। আগে তৃণমূল ও সিপিএম ছোলা মুড়ি খাওয়াতো। এখন সিপিএম ছেড়ে সব বিজেপি হয়ে গেছে। এখন লুচি আলুরদম দেওয়া হয়। তবে এই গ্রামে সব দলের সমর্থকদের মধ্যেই মেলামেশা আছে। আর ভোটের দিন একসঙ্গেই চলে খাওয়াদাওয়া।”

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More