কলকাতায় ত্রিপুরার বিজেপি বিধায়করা! রা কাড়ছে না তৃণমূল, উৎকণ্ঠায় বিপ্লবরা

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো:ত্রিপুরাকে পাখির চোখ করে ঝাঁপিয়েছে তৃণমূল। গত দেড়-দু’মাস ধরে বারবার ত্রিপুরার সংঘাত, সংঘর্ষ রাজনৈতিক চাপানউতোর সামনে এসেছে। এমনিতেই বিপ্লব দেব সরকার স্বস্তিতে ছিল না বিজেপির অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণে। তার মধ্যেই তৃণমূল চাপ বাড়াতে শুরু করে। এর মধ্যেই শুক্রবার শোনা যাচ্ছে, ত্রিপুরার বেশ কয়েক জন তাবড় বিজেপি বিধায়ক কলকাতায় এসেছেন। তাঁরা তৃণমূলের নেতাদের সঙ্গে বৈঠকও করেছেন বলে খবর।

কারা এসেছেন কলকাতায়?
জানা গিয়েছে, ৬ আগরতলার বিধায়ক সুদীপ রায়বর্মন, বরদোয়ালির বিধায়ক আশিষ সাহা এবং সুরমার বিধায়ক আশিষ দাস এসেছেন কলকাতায়।

বিপ্লব বিরোধী শিবিরের প্রধান নেতা সুদীপ রায় বর্মনই। তাঁর এই কলকাতায় আসা তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছেন অনেকে। ত্রিপুরার রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, সুদীপের আসা মানে আরও অন্তত চার-পাঁচ জন বিধায়ক তাঁর পিছনে রয়েছেন। তা যদি সত্যিই সত্যিই হয় তাহলে বিপ্লব দেব সরকার বেকায়দায় পড়ে যেতে পারে।

বিজেপি বিধায়কদের কলকাতায় আসার কথা স্বীকার করেননি তৃণমূল মুখপাত্র কুণাল ঘোষ। তিনি বলেন, “কই আমি জানি না তো!” সেইসঙ্গে কুণাল এও বলেন, “এ ব্যাপারে আমি দুটি কথা বলতে পারি। এক, ত্রিপুরার বিজেপি সরকারের মেয়াদ পূর্ণ করা মুশকিল। দুই, তৃণমূল চায় না আগে সরকার পড়ে যাক। নির্দিষ্ট সময়ে ভোটে জনতার রায় নিয়েই ত্রিপুরায় মা-মাটি মানুষের সরকার তৈরি করতে চায় দল।”

ওদিকে বিপ্লব শিবিরের কী অবস্থা?

একাধিক বিধায়কের কলকাতায় আসা নিয়ে বিপ্লব দেবের সচিবালয়েও আলোচনা চলছে। যদিও প্রকাশ্যে কেউ উদ্বেগ দেখাচ্ছেন না। তবে ঘরোয়া আলোচনায় উৎকণ্ঠা গোপনও করছেন না তাঁরা। প্রদেশ বিজেপি নেতারা বুঝতে চাইছেন, কোন কোন বিধায়কের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন সুদীপ, আশিষরা।

সুদীপ রায়বর্মন ঘনিষ্ঠ এক বিধায়ক জিরানিয়ার সুশান্ত চৌধুরী সম্প্রতি শিবির বদলে বিপ্লবের দিকে ঢলে পড়েছেন। অনেকের মতে, সেটাও সুদীপের চাল হতে পারে। আগরতলা শহরের অভয়নগরের এক বিজেপি নেতা সম্প্রতি দলীয় সভায় বলেছেন, গোটা দলের মধ্যে অবিশ্বাসের বাতাবরণ চলছে। কেউ কাউকে বিশ্বাস করতে পারছেন না। এই পরিবেশের জন্য তিনি দলীয় সভায় মুখ্যমন্ত্রীর ভূমিকার সমালোচনা করেন বলেও খবর। সব মিলিয়ে ত্রিপুরার বিধায়কদের কলকাতায় আসা নিয়ে ব্যাপক গুঞ্জন রাজনৈতিক মহলে। সংলিষ্ট বিধায়কদের সঙ্গে চেষ্টা করেও যোগাযোগ করা যায়নি।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.