গরুমারায় চিতাবাঘের এক জোড়া চামড়া উদ্ধার, বড় সাফল্য বন দফতরের, ধৃত ১

বৃহস্পতিবার রাতে নাগরাকাটার নয়া শাইলি চা বাগানে অভিযান চালায় বনকর্মীরা। গ্রেফতার করা হয়েছে শানিচারোয়া মাহালি নামে বছর ৪২এর এক ব্যক্তিকে। তার বাড়ি নয়া শাইলি চা বাগানের গুয়াবাড়ি লাইন এলাকায়। ২৩শে অক্টোবর শুক্রবার ওই ধৃত ব্যক্তিকে জলপাইগুড়ি আদালতে তোলা হয়।

দ্য ওয়াল ব্যুরো, জলপাইগুড়ি: প্রাণী দেহাংশ পাচারকারীদের বিরুদ্ধে ফের বড়সড় সাফল্য পেল গরুমারা ওয়াইল্ড লাইফ ডিভিশন। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে পাচারের আগেই একজোড়া চিতাবাঘের চামড়া উদ্ধার করল বন দফতরের গরুমারা সাউথ রেঞ্জের কর্মীরা। ধরা পড়ল একজন।

বন দফতর সূত্রে জানা গেছে, রেঞ্জার অয়ন চক্রবর্তীর নেতৃত্বে বৃহস্পতিবার রাতে নাগরাকাটার নয়া শাইলি চা বাগানে অভিযান চালায় বনকর্মীরা। গ্রেফতার করা হয়েছে শানিচারোয়া মাহালি নামে বছর ৪২এর এক ব্যক্তিকে। তার বাড়ি নয়া শাইলি চা বাগানের গুয়াবাড়ি লাইন এলাকায়। ২৩শে অক্টোবর শুক্রবার ওই ধৃত ব্যক্তিকে জলপাইগুড়ি আদালতে তোলা হয়।

এ বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে, রেঞ্জার অয়ন চক্রবর্তী বলেন, পাচারকারীদের বিরুদ্ধে বনদফতরের অভিযান অব্যহত থাকবে। তিনি আরও বলেন, “আমাদের কাছে খবর ছিল নয়া শাইলি চা বাগানের কোনও একটি জায়গা থেকে বৃহস্পতিবার রাতে চিতাবাঘের চামড়া হাত বদল হবে। সেই মোতাবেক আমরা বনকর্মীদের নিয়ে টিম গঠন করে ঐ এলাকায় অভিযান চালাই। আমরা দেখতে পাই চা বাগানের রাস্তার কাছে অন্ধকারে দাঁড়িয়ে আছে কয়েকজন ব্যক্তি।বনকর্মীরা চেস করতেই তারা দৌড়তে শুরু করলে আমরাও তাড়া করে শনিচারোয়া মাহালি নামে একজনকে বমাল ধরে ফেলি। তার ব্যাগের ভেতর থেকে উদ্ধার হয় দুটি চিতাবাঘের চামড়া। যার মধ্যে একটি চামড়া পূর্ণ বয়স্ক চিতাবাঘের। অপরটি তুলনামূলক ভাবে কম বয়সী আরেকটি চিতাবাঘের। চামড়াগুলিকে দেখে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, এদের মাস খানেকের মধ্যে শিকার করা হয়েছে।”

বন দফতরের অনারারি ওয়াইল্ড লাইফ ওয়ার্ডেন সীমা চৌধুরি এই ঘটনায় সাধুবাদ জানিয়েছেন। এদিন তিনি সংবাদমাধ্যমে বলেন, বনকর্মীরা অত্যন্ত প্রশংসনীয় একটি কাজ করেছেন। চোরাশিকার রোধে এরকম কার্যকরী পদক্ষেপ নেওয়া হবে বারবার। তদন্ত এগিয়ে নিয়ে যেতে, এই অবৈধ চোরাচালানের সঙ্গে আরও কারা জড়িত আছে, কীভাবেই বা শিকার করা হয়েছে, তা জানতে ধৃতকে আজ জলপাইগুড়ি আদালতে তুলে রিমান্ডের আবেদন জানিয়েছেন বন দফতর। বাকিদের খোঁজেও শুরু হয়েছে তল্লাশি।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More