তাইওয়ানকে সহায়তার ইঙ্গিত, আমেরিকাকে পাল্টা হুমকি চিনের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: তাইওয়ানের স্বাতন্ত্র্য রক্ষায় এবার মার্কিন সহায়তা প্রদানের ইঙ্গিত দিলেন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। গত বৃহস্পতিবার মার্কিন রাষ্ট্রদূতরা তাইওয়ান পরিদর্শনে এসে চিনে হুমকির মোকাবিলায় প্রেসিডেন্ট সাই ইং ওয়েনকে সহযোগিতার আশ্বাস দেন। ভবিষ্যতে তাইওয়ানের সঙ্গে মার্কিন সম্পর্ক আরও শক্তিশালী হতে চলছে এমনটাই মনে করছেন মার্কিন কর্মকর্তারা।

এদিকে চিনও পাল্টা আমেরিকাকে হুমকি দিল, তারা যেন তাইওয়ান ইস্যুতে আগুন নিয়ে না খেলে। ওয়াশিংটন যে নতুন গাইডলাইন জারি করে মার্কিন কর্তাব্যক্তিদের তাইওয়ানের লোকজনের সঙ্গে খোলাখুলি দেখাসাক্ষাৎ করার সুযোগ করে দিয়েছে, তারও তীব্র বিরোধিতা করেছে চিন। চিনা বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র ঝাও লিঝিয়ান জানিয়েছেন, আমেরিকার কাছে এ নিয়ে জোরালো প্রতিবাদ জানিয়েছে।

কয়েকমাস ধরেই তাইওয়ানের কাছাকাছি এলাকায় সামরিক তৎপরতা বাড়িয়ে যুদ্ধ বিমান উড়িয়ে চলেছে চিন। এ পর্যন্ত পরমাণুশক্তিধর ২৫টি যুদ্ধবিমান তাইওয়ান সীমান্তে উড়তে দেখা গেছে। শুধু তাই নয়, শি সিন পিংয়ের স্পষ্ট হুঁশিয়ারি বার্তা ছিল যে, তাইওয়ানের স্বাধীনতা অর্জনের যেকোন চেষ্টার অর্থ হবে যুদ্ধ। এরপরই দেশের নিরাপত্তা জোরদার করতে উঠেপড়ে লাগে তাইওয়ান প্রশাসন।

এদিন মার্কিন সেনেটর ক্রিস ডড, প্রাক্তন প্রাক্তন মার্কিন ডেপুটি সেক্রেটারিবৃন্দ এবং অন্যান্য মার্কিন কর্মকর্তারা তাইওয়ানের রাজধানী তাইপেইয়ে পা রাখেন। প্রেসিডেন্ট সাইয়ের সঙ্গে দীর্ঘ বৈঠকের মধ্যে দিয়ে তাইওয়ানের গণতান্ত্রিক স্বাধীনতা অটুট রাখার জন্য সবরকম সহায়তা করার ইঙ্গিত তাঁরা দেন। মার্কিন কর্মকর্তাদের এহেন আচমকা আগমন হোয়াইট হাউসের জনৈক সদস্যর ভাষায় ‘ব্যক্তিগত ইঙ্গিত’ বাহী। জো বাইডেন এবার বিশেষভাবে চিনকে কোণঠাসা করতে উদ্যত, এমনটাই মনে করছেন রাজনীতিকরা।

এদিন বৈঠকে প্রেসিডেন্ট সাই জানান, চিন সামরিক ঔদ্ধত্য দেখিয়ে তাইওয়ানের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করছে বারবার। এতে শান্তি বিঘ্নিত হচ্ছে। এই পরিস্থিতি কখনই কাম্য নয়। তিনি আরও জানান, বহিঃশত্রুর মোকাবিলায়, সাগর পাড়ের শান্তিরক্ষায় তাইওয়ান যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে একযোগে সক্রিয় হতে চায়। মার্কিন-তাইওয়ান বাণিজ্য চুক্তি নিয়েও এদিন বৈঠকে আলোচনা হয়।

চিনের সীমান্তে রিপাবলিক প্রদেশ তাইওয়ান আজও চিনের পদানতই থাকবে, এমন দাবি মেনে নিয়ে গুটিয়ে থাকা সম্ভব নয়, সেটাই এদিন স্পষ্ট করেন প্রেসিডেন্ট সাই। বৈঠকটি ফেসবুকে লাইভ সম্প্রচার করা হয়।

 

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More