করোনায় মৃত বৃদ্ধের দেহের খোঁজ পেলেন না ছেলে, তুমুল চাঞ্চল্য হাওড়ার হাসপাতালে

দ্য ওয়াল ব্যুরো, হাওড়া: কোভিডে আক্রান্ত এক রোগীর মৃত্যুর খবর জানানো হয়েছিল পরিবারকে। কিন্তু সরকারি হাসপাতালে দেহ আনতে গিয়ে আর দেহের খোঁজ পায়নি পরিবার। এমনটাই অভিযোগ। এই ঘটনা ঘিরে তীব্র চাঞ্চল্য সৃষ্টি হল হাওড়ার বালটিকুরি ইএসআই কোভিড হাসপাতালে।
হৃদরোগী আশরাফ আলি মিদ্দেকে (৭০) গত ১৫ ই এপ্রিল ভর্তি করা হয়েছিল আমতা গ্রামীণ হাসপাতালে। আমতার বাসিন্দা ওই বৃদ্ধের জ্বর থাকায় ওই হাসপাতলে তাঁর কোভিড টেস্ট হয় । পরে রিপোর্ট আসলে জানা যায় তিনি কোভিড পজিটিভ। এরপর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ চিকিৎসার জন্য তাঁকে বালটিকুরি ইএসআই কোভিড হাসপাতালে রেফার করে। ওইদিন সেখানেই তাঁকে ভর্তি করা হয়।

গত ১৭ এপ্রিল শনিবার দুপুর আড়াইটা নাগাদ তাঁর মৃত্যু হয় বলে হাসপাতালসূত্রে খবর । হাসপাতাল থেকে ওইদিন বিকেলে সাড়ে চারটে নাগাদ মৃতের বাড়িতে খবর দেওয়া হয় । কিন্তু ওই দিন বাড়ির লোকজন ডোমজুড় বিডিও অফিস থেকে কাগজপত্র আনতে দেরি করায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাঁদের দেহ দেখতে দেয়নি। অভিযোগ, পরের দিন অর্থাৎ রবিবার সকালে মৃতের আত্মীয়রা যখন হাসপাতালে পৌঁছন তখন তাঁদের অন্য একটি মৃতদেহ দেখানো হয়।

আসরাফ আলির ছেলে মোর্তজা আলি মিদ্দে জানান, তাঁকে যে দেহটি দেখানো হয়, তা তাঁর বাবার নয়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এই বিষয়ে কিছু না জানালেও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে শনিবার বিকালে হাসপাতালের মর্গে মোট পাঁচটি দেহ ছিল যার মধ্যে চারটি দেহ শনাক্তকরণের পর কোভিড নিয়ম মেনে সৎকার করা হয়। একটি দেহ মর্গে পড়েছিল । কিন্তু কোনও একজনের ভুলে ওই দেহটি বদলের ঘটনা ঘটতে পারে ।

রবিবার রাত পর্যন্ত হাসপাতালে অপেক্ষা করার পরেও কোনও আশ্বাস না পেয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে বাঁকড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে অভিযোগ দায়ের করে আশরাফ আলির পরিবার । তাঁদের অভিযোগ, হাসপাতালে কর্মীদের গাফিলতির কারণেই এই ঘটনা ঘটেছে।

পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। যে চারটি মৃতদেহ সৎকার করা হয়েছে, তাদের পরিবারের লোকজনদের খবর দেওয়া হয়েছে। মর্গে যে মৃতদেহটি রয়েছে সেটি ফের শনাক্তকরণ করা হবে।

 

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More