বড় জমায়েত করবে না বামফ্রন্ট, কোভিড আবহে ‘দায়িত্বশীল’ সিদ্ধান্ত আলিমুদ্দিনের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ভোটের আবহে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। এ রাজ্যে ইতিমধ্যেই দৈনিক কোভিড কেস প্রায় ৫ হাজারে পৌঁছেছে। প্রশ্ন উঠেছে, এই পরিস্থিতিতে প্রতিদিন রাজ্যের নানা প্রান্তে নেতানেত্রীরা যে এত জমায়েত করছেন, তা উচিত কিনা। চিকিৎসকরাও এ বিষয়ে সতর্ক করছেন বারবারই।

এমনই পরিস্থিতিতে ব্যতিক্রমী সিদ্ধান্ত নিল বামফ্রন্ট। তারা জানিয়ে দিল, বাকি তিন দফা ভোটের প্রচারে কোনও বড় জমায়েতে করবে না তাঁরা। ভার্চুয়াল মাধ্যমে বা বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্রচার করাতেই পুরোপুরি জোর দেওয়া হবে তাদের তরফে। এই প্রথম কোনও রাজনৈতিক শিবির এমন সিদ্ধান্ত নিল। এই সিদ্ধান্ত যথেষ্ট দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিচ্ছে বলেই মনে করছেন বহু মানুষ।

বুধবার আলিমুদ্দিন স্ট্রিটে এ বিষয়ে সাংবাদিক সম্মেলন করে মহম্মদ সেলিম বলেছেন, “আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, চার দফায় ভোট হয়ে গিয়েছে। পঞ্চম দফার ভোট প্রচার শেষ লগ্নে, আগামী দফার নির্বাচনের প্রচারে বড়সড় ভিড় না করার। হইচই পাকানোর মতো কিছুই করা হবে না। বরং বড় প্রচারে না গিয়ে মানুষকে সচেতন করার উপর জোর দেব আমরা।’’ তিনি আরও বলেন, ‘‘যেখানে ভোট হয়েছে, বা যেখানে ভোট হবে সেইসব জায়গায় একই ভাবে গত এক বছর ধরে আমরা যে পরিষেবা দিয়েছি, তা আমরা করব। আক্রান্ত মানুষের পাশে দাঁড়ানো, বাস্তব পরিস্থিতি মেনে সবাইকে সচেতন করা এবং অসহায় মানুষের কাছে যাওয়া, মানুষের হক নিয়ে লড়াই করা। রেশন ও খাদ্য পৌঁছে দেওয়ার মতো কাজ করব।’’

মোট ১২২টি আসনে ভোট হবে শেষ তিন দফায়। তার আগে মাস্ক ও স্যানিটাইজার ব্যবহার করে, বাড়ি বাড়ি গিয়ে ছোট মাত্রায় ভোটের প্রচার চালিয়ে যাবেন বামকর্মীরা। সেলিম এদিন বলেছেন, ‘‘নতুন নতুন পদ্ধতির মাধ্যমে প্রচার করা হবে। ছোট ছোট পথসভার ওপর জোর দেওয়া হবে। সামাজিক দূরত্ব মেনে, নেটমাধ্যমকে কাজে লাগিয়ে প্রচার করবেন প্রার্থীরা।’’

রাজ্য ও কেন্দ্রীয় সরকারের করোনা মোকাবিলার পদ্ধতিকেও আক্রমণ করেন তিনি। বলেন, ‘‘আমাদের সরকার তো করোনা মোকাবিলা মানে একটাই জিনিস জানে, লকডাউন। এখনও গত বছরের লকডাউনের প্রভাব যায়নি। কর্মহীন মানুষের জ্বালা, মানুষের আকুতি ও যন্ত্রণা এখনও তাজা। মুখে অনেক কথা বললেও অর্থনীতির কোনও পরিবর্তন হয়নি।’

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More