করোনার ভ্যাকসিনের বদলে জুটল জলাতঙ্কের টিকা, বিভ্রাট উত্তরপ্রদেশে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ‘বাক্সবদল’-এর গল্প তো অনেকেরই জানা। কিন্তু তাই বলে ‘টিকাবদল’! তাও আবার বাড়তে থাকা সংক্রমণের সময়! করোনার টিকা নিতে গিয়ে জলাতঙ্কের টিকা নিয়ে বাড়ি ফিরলেন তিন বৃদ্ধা। আজব এই বিভ্রাটের ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের শামলির কান্ধলা অঞ্চলে।

গোটা বিষয়টি জানাজানি হতেই উচ্চ পর্যায়ের তদন্তের আশ্বাস দিয়েছে জেলা প্রশাসন৷ স্বাস্থ্যকেন্দ্র থেকে জবাবদিহিও তলব করা হয়েছে। তবু মুখ পুড়োনোর লজ্জা কিছুতেই আড়াল করতে পারছে না যোগী সরকার৷ একদিকে যখন সামনে আসছে টিকার আকাল, তখন তিন বয়স্কা মহিলার সঙ্গে এহেন কর্তব্যের গাফলতিকে লঘু চোখে দেখতে নারাজ বিরোধীরা। আপাতত তাঁরা সুস্থ থাকলেও ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের শাস্তির দাবিতে সরব অনেকে।

আদতে ঠিক কী ঘটেছে? টিকাবিভ্রাটের সত্যতা স্বীকার করে জেলাশাসক যশজিৎ কৌর বলেন, ‘ওই তিন বৃদ্ধা করোনার ভ্যাকসিন নিতে গিয়ে জেনারেল ওপিডি (আউটপেশেন্ট ডিপার্টমেন্ট)-তে দাঁড়িয়ে পড়েন। তারপর টিকা দেওয়ার আর্জি জানান। ভুল লাইনে দাঁড়িয়ে পড়ায় সংশ্লিষ্ট স্বাস্থ্যকর্মী তাঁদের রেবিসের ভ্যাকসিন দিয়ে দেন।’

কিন্তু এখাবেই উঠেছে প্রশ্ন। গ্রাম্য মহিলারা বোঝাতে ভুল করেছেন, এটা সত্যি। কিন্তু স্বাস্থ্যকর্মীরা কোনওকিছু খতিয়ে না দেখে জলাতঙ্কের টিকাই বা দিতে গেলেন কেন? গাফিলতি নিয়ে রাখঢাক না করে যশজিৎ জানান, ‘ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। এসডিএম ও সিএমওএইচ-কে দ্রুত রিপোর্ট জমা দিতে বলেছি। যারা গোটা বিষয়টির সঙ্গে যুক্ত, তাদের শাস্তি হবেই।’

কেমন আছেন তিন বৃদ্ধা? স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে খবর, শুরুতে তাঁদের মধ্যে ঝিমুনি এবং বমি বমি ভাব দেখা দিয়েছিল। দু’দিন এরকম চলার পর তাঁদের স্থানীয় চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। তিনি ভ্যাকসিনেশনের স্লিপ দেখতে চান। আর ঠিক তখনই জলাতঙ্কের বিষয়টি উঠে আসে।

যদিও সিএমওএইচ-এর দাবি, তিনজন বৃদ্ধা পুরোপুরি সুস্থ। ভুল ভ্যাকসিন দেওয়া হলেও তার কোনও ভয়ানক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নজরে আসেনি।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More