নারায়ণগড়ে তৃণমূল কর্মী গুলিবিদ্ধ, হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর মৃত্যু

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ফের রাজনৈতিক হিংসায় মৃত্যু বাংলায়। মঙ্গলবার রাতে পশ্চিম মেদিনীপুরের নারায়ণগড়ে গুলিবিদ্ধ হলেন এক তৃণমূলকর্মী। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর তাঁর মৃত্যু হয়। নিহতের নাম শৌভিক দলুই।

মঙ্গলবার রাতে চার তৃণমূল কর্মীর উপর বামাবাজি ও গুলি চলার ঘটনা ঘটে। তার মধ্যে এক তৃণমূল কর্মীর পিঠে গুলি লাগে। বাকিরা বোমার আঘাতে জখম বলে জানা গিয়েছে। আহতদের উদ্ধার করে খড়গপুর মহকুমা হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখান থেকে তাঁদের মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠানো হয়। ঘটনাটি ঘটেছে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার নারায়ণগড় থানার মকরামপুর এর অভিরামপুর গ্রামে।

তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দলের অভিযোগ উঠলেও ব্লক তৃণমূল সভাপতি মিহির চন্দ্র বলেন, “কেউ বা কারা এসে তৃণমূলের চার কর্মীর উপর হামলা চালিয়েছে। বোমাবাজি করেছে।”

এদিকে ঘটনার খবর পেয়ে এলাকায় গিয়েছে বিশাল পুলিশ বাহিনী। এসডিপিও ছাড়াও খড়গপুর থেকে অতিরিক্ত জেলা পুলিশ সুপার (খড়গপুর) রাজা মুখোপাধ্যায় ঘটনাস্থলের উদ্দেশে রওনা দিয়েছেন।

আহতদের খড়গপুর হাসপাতালে চিকিৎসা করানোর সময় খড়গপুর টাউন থানার পুলিশ হাজির ছিল। অতিরিক্ত জেলা পুলিশ সুপার (খড়গপুর) রাজা মুখোপাধ্যায় বলেন, “একটা ঘটনার খবর পাওয়া গিয়েছে। বাইকে করে তিনজন এসে হামলা চালিয়েছে। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।”

পুলিশ ও আহতদের সূত্রে জানা গিয়েছে, গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যু হয়েছে শৌভিক দলুই ওরফে অভিকের। বোমায় আঘাত পেয়েছেন সীতারাম মুর্মু ও অমিত মন্ডল ওরফে অভিজিৎ। আহত সীতারাম বলেন, অভিরামপুর গ্রামে তারা বসে গল্প করছিল। সে সময় বাইকে করে তিনজন এসে বোমা মারে। একই সাথে গুলিও চালায়। তাতে শৌভিকের পীঠে গুলি লাগে।

এক বন্ধু কোনও রকমে রক্ষা পেলেও বাকি দুজন বোমায় আঘাত পেয়েছেন। সীতারাম আরও বলেন, “বেশ কিছু দিন ধরে তারা দলের হয়ে তেমন কাজ করছিলেন না। যাকে অঞ্চল সভাপতি করা হয়েছে তাকে এক সময় বহিষ্কৃত করা হয়েছিল। তাকে দল দায়িত্ব দেওয়ায় তারা বসে গিয়েছিল। সে কারণে তাদের উপর হামলা হতে পরে।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More