অমিত শাহরা বাংলায় এলে কোভিড নেগেটিভ রিপোর্ট আনতে হবে, এসে পজিটিভ হলে ১৪ দিন আইসোলেশন

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ভোটের সময়েই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অভিযোগ করেছিলেন, বহিরাগতরা বাইরে থেকে করোনা নিয়ে বাংলায় ছড়াচ্ছে। ভোট মিটে গেছে। বাংলায় কোভিডের সংক্রমণ কমেনি বরং বাড়ছে। সেই সঙ্গে অব্যাহত রয়েছে ভোট পরবর্তী হিংসার ঘটনা। যা নিয়ে অসন্তোষ জানিয়ে কখনও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের প্রতিনিধি দল কলকাতায় আসছেন তো কখনও বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতা মন্ত্রীরা।
এই পরিস্থিতিতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বৃহস্পতিবার সাংবাদিক বৈঠক করে জানিয়ে দিয়েছেন, বাইরে থেকে কেউ কলকাতায় এলে আরটি-পিসিআর টেস্ট করিয়ে নেগেটিভ রিপোর্ট নিয়ে আসতে হবে। বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের টিমের উদ্দেশ্যেই যে তাঁর এই বার্তা তা ঠারেঠোরে বুঝিয়ে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর কথায়, দেখুন আমি মনে করি আইন সবার জন্য এক। কেউ এখানে আলাদা সুবিধা পেতে পারে না। কেউ যদি স্পেশাল ফ্লাইটে বা চার্টার্ড বিমানে আসেন তা হলেও কোভিড টেস্টের রিপোর্ট আনতে হবে। নইলে আমরা টেস্ট করাব। আর পজিটিভ ধরা পড়লে নিজের খরচায় ১৪ দিন আইসোলেশনে থাকতে হবে। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, গরিব মানুষ হলে সরকার থাকার ব্যবস্থা করবে। কিন্তু এঁরা তো কেউ গরিব নয়, এরা হোটেলে নিজেদের খরচায় থাকতেই পারেন।
বাংলায় রাজনৈতিক হিংসার ঘটনা নিয়ে নবান্নের বক্তব্য জানতে বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের একটি প্রতিনিধি দল কলকাতায় আসে। আবার বিজেপির কেন্দ্রীয় মন্ত্রী মুরলীধরন পূর্ব মেদিনীপুর সফরে যান। তা ছাড়া গত দুদিন ধরে কলকাতায় ছিলেন দলের সর্বভারতীয় সভাপতি জগৎপ্রকাশ নাড্ডা।
এ সব নিয়ে প্রশ্ন করা হলে মুখ্যমন্ত্রী এদিন বলেন, “একটা সরকারের চব্বিশ ঘণ্টাও হয়নি। তার মধ্যে চিঠি চলে আসছে, টিম চলে আসছে, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী চলে আসছেন। আমি বিজেপিকে বলব, মানুষের রায় মেনে নিন। আমাদের ছেলেদেরও বলব অশান্তি না করতে”। সেই সঙ্গে পাল্টা প্রশ্ন তুলে তিনি বলেন, “বিজেপির নেতা মন্ত্রীরা ছ’মাস ধরে বাংলায় এসে রাজ্যকে করোনায় ধ্বংস করে দিয়েছে। কই অক্সিজেন না থাকলে টিম আসেনা তো, ভ্যাকসিন না থাকলে টিম আসেনা তো, স্যালাইন নেই টিম আসেনা তো, হাথরাসে ঘটনা ঘটলে টিম আসেনা তো, দিল্লিতে দাঙ্গা হলে টিম আসেনা তো, সাংবাদিকদের মারা হলে টিম আসেনা তো। আজকে টিম এসেছিল, চা খাইয়ে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। থ্যাঙ্ক ইউ সো মাচ”।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More