আমেরিকার ভোটে ট্রাম্পের থেকে ২.৯ শতাংশ পয়েন্ট এগিয়ে আছেন বিডেন, জানা গেল জনমত সমীক্ষায়

দ্য ওয়াল ব্যুরো : আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ‘টাইট ফিনিশ’ হতে চলেছে। রিপাবলিকান দলের প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাপ ও ডেমোক্র্যাট জো বিডেনের মধ্যে ব্যবধান কমছে ক্রমশ। মঙ্গলবার জনমত সমীক্ষায় এমনই জানা গিয়েছে। রিয়েল ক্লিয়ার পলিটিক্স নামে এক সমীক্ষক সংস্থা জানিয়েছে, ৭৭ বছর বয়সী বিডেন তাঁর ৭৪ বছর বয়সী প্রতিদ্বন্দ্বী ট্রাম্পের থেকে ২.৯ শতাংশ পয়েন্ট এগিয়ে আছেন। তবে এখনই নির্দিষ্ট করে কিছু বলা যায় না। কারণ ২.৯ শতাংশ পয়েন্ট মার্জিন অব এররের মধ্যে পড়তে পারে।

একসময় বিডেন বেশ কিছু পয়েন্টে ট্রাম্পের চেয়ে এগিয়ে ছিলেন। কিন্তু ভোটের ঠিক আগে প্রচারে ঝড় তুলেছিলেন ট্রাম্প। গত তিনদিনে তিনি ও ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স অন্তত ৪০ টি সভা করেছেন। গত কয়েকদিনে বিডেন, ভাইস প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী কমলা হ্যারিস ও প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামাও বেশ কয়েকটি জনসভা করেছেন। কিন্তু পর্যবেক্ষকদের মতে, তাঁরা ট্রাম্পের সঙ্গে পাল্লা দিতে পারেননি।

ভোটের ঠিক আগে বিডেন প্রচার করেছেন ওহাইওতে, ওবামা সভা করেছেন ফ্লোরিডায় এবং হ্যারিস প্রচার করেছেন পেনসিলভানিয়ায়। দক্ষিণের গুরুত্বপূর্ণ পাঁচটি রাজ্যে গত তিনদিনে পাঁচটি সভা করেছেন ট্রাম্প। রাজ্যগুলি হল নর্থ ক্যারোলিনা, ফ্লোরিডা, উইসকনসিন, পেনসিলভানিয়া এবং মিশিগান।

কয়েকদিন আগে পর্যন্ত বিডেন ট্রাম্পের থেকে আট পয়েন্টে এগিয়েছিলেন। ট্রাম্প ও বিডেন, দু’জনেই বলেছিলেন, তাঁরা জিতছেন। আমেরিকার বড় সংবাদপত্রগুলি অবশ্য গত সোমবার বলেছে, এবার ট্রাম্পের পক্ষে জেতা কঠিন। কারণ পেনসিলভানিয়া, ফ্লোরিডা, মিশিগান, অ্যারিজোনা এবং উইসকনসিনে তিনি পিছিয়ে আছেন।

ট্রাম্পের সমর্থকরা অবশ্য বলছেন, জনমত সমীক্ষায় সবসময় বাস্তব অবস্থাটা বোঝা যায় না। ২০১৬ সালেও সমীক্ষায় বলা হয়েছিল, ট্রাম্প হেরে যাবেন। কিন্তু তিনি জিতেছিলেন। ফাইভ থার্টি এইট ডট কম নামে এক সমীক্ষক সংস্থা গত সোমবার বলেছে, ট্রাম্পের জয়ের সম্ভাবনা মাত্র ১০ শতাংশ। ওই সংস্থাটি কিন্তু ২০১৬ সালে ভুল ভবিষ্যৎবাণী করেছিল।

মঙ্গলবারের আগেই করোনা সংক্রমণের আশঙ্কায় পোস্টাল ব্যালটে ভোট দিয়ে ফেলেছেন ৯ কোটি ২৫ লক্ষ ভোটার।

চার বছর অন্তর নভেম্বরের প্রথম সোমবারের পর মঙ্গলবারের ভোট হয় আমেরিকায়। করোনার মধ্যে দুই শতাব্দী প্রাচীন রীতিতে বদল হয়নি এবারও।

কোভিড এবার অন্যতম বড় ইস্যু মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে। একাধিক সমীক্ষা রিপোর্টে বলা হয়েছে বেশিরভাগ মার্কিন নাগরিক মনে করছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প করোনা পরিস্থিতি সামাল দিতে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছেন। যদিও ট্রাম্পের দাবি আমেরিকার অবস্থা মোটেও খারাপ নয়।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More