এত খারাপ ফল হবে ভাবতেই পারিনি, বিধানসভা ভোট নিয়ে বললেন সোনিয়া

দ্য ওয়াল ব্যুরো : চার রাজ্য ও একটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে বিধানসভা ভোটে কংগ্রেসের ফলাফল নিয়ে শীঘ্রই আলোচনায় বসবে কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটি। তার আগে শুক্রবার দলনেত্রী সোনিয়া গান্ধী বলেন, ভোটে কংগ্রেসের ফলাফল খুবই হতাশাজনক। তিনি স্বীকার করেন, ফল যে এত খারাপ হবে চিন্তাই করেননি।

এদিন সোনিয়া বিধানসভা ভোটে জেতার জন্য তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও ডিএমকে নেতা এম কে স্ট্যালিনকে অভিনন্দন জানান। সেই সঙ্গে বলেন, আমরা পরাজয় থেকে শিক্ষা নেব।

পশ্চিমবঙ্গের ভোটে সিপিএমের সঙ্গে জোট বেঁধেছিল কংগ্রেস। এখানে তারা একটিও আসন পায়নি। তৃণমূল কংগ্রেস পেয়েছে ২১৩ টি আসন। বিজেপি পেয়েছে ৭৭ টি। একসময় কংগ্রেসের শক্ত ঘাঁটি হিসাবে পরিচিত ছিল অসম। ২০১৬ সালে প্রথমবার বিজেপি ওই রাজ্যে ক্ষমতায় আসে। অসমের ভোটে অবশ্য পশ্চিমবঙ্গের মতো একেবারে মুছে যায়নি কংগ্রেস। সেখানে তারা পেয়েছে ২৯ টি আসন। কিন্তু ৯৫ আসনবিশিষ্ট বিধানসভায় কংগ্রেস বিজেপিকে চ্যালেঞ্জ জানানোর মতো অবস্থায় নেই।

কেরলে কংগ্রেস পেয়েছে ৪১ টি আসন। বাম নেতৃত্বাধীন ফ্রন্ট সেখানে ৯৯ টি আসন পেয়ে দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় এসেছে। বিজেপি ওই রাজ্যে একটিও আসন পায়নি। তামিলনাড়ুতে কংগ্রেস ছিল ডিএমকে-র সহযোগী দল। তারা সেখানে ২৫ টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে পেয়েছে ১৮ টি। পুদুচেরিতে কংগ্রেস ক্ষমতায় ফিরতে ব্যর্থ হয়েছে। ভোটের কয়েকদিন আগে ওই কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে কংগ্রেস সরকার ভেঙে পড়ে। এবার সেখানে ক্ষমতায় এসেছে এনআর কংগ্রেস ও বিজেপির জোট। বিধানসভায় ৩০ টি আসনের মধ্যে বিজেপি জোট পেয়েছে ১৬ টি।

গতবছর বিহার বিধানসভা ভোটেও কংগ্রেসের ফল ভাল হয়নি। সেখানে তারা তেজস্বী যাদবের আরজেডি-র সঙ্গে জোট বেঁধেছিল। ৭০ টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে তারা জিতেছিল মাত্র ১৯ টি।

গত একবছর ধরে কংগ্রেসের কয়েকজন প্রবীণ নেতা একাধিকবার বলেছেন, দল কেন বার বার খারাপ ফল করছে, তা নিয়ে আত্মসমীক্ষা করা হোক। এই নেতাদের মধ্যে আছেন গুলাম নবি আজাদ, আনন্দ শর্মা ও কপিল সিব্বল। গতবছর ২৩ অগাস্ট তাঁরা সোনিয়াকে চিঠি দিয়ে বলেন, দলে পূর্ণ সময়ের জন্য নেতৃত্ব চাই। গত জানুয়ারিতে কংগ্রেস বলেছিল, বিধানসভা ভোট শেষ হলে জুন মাসে কংগ্রেসের নতুন সভাপতি নির্বাচিত হবেন।

শুক্রবার ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কংগ্রেস সংসদীয় দলের সঙ্গে বৈঠক করেন সোনিয়া। দেশে কোভিড নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতার জন্য তিনি মোদী সরকারের কড়া সমালোচনা করেন।

Leave a comment

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More