ক্রোয়েশিয়ার জয় চাপ বাড়াল মেসিদের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: তেমন একটা গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ ছিল না। কিন্তু শনিবার রাত সাড়ে আটটার পর হঠাৎ করেই গুরুত্ব বেড়ে গিয়েছিল ম্যাচটার। আনকোরা আইসল্যান্ডের সঙ্গে আর্জেন্টিনার ১-১ ড্রয়ের পর নজর গোটা দুনিয়ার নজর ছিল ক্রোয়েশিয়া বনাম নাইজেরিয়া ম্যাচের দিকে। এই ম্যাচ ড্র হলে সুবিধে হতো আর্জেন্টাইন টিমের। কিন্তু তা হলো না। মেসিদের চাপ বাড়িয়ে নাইজেরিয়াকে ২-০ গোলে হারিয়ে গ্রুপ শীর্ষে পৌঁছে গেল র‍্যাকিটিচের ক্রোয়েশিয়া।

খেলার শুরু থেকে দু’দলই ডিফেন্স সামলে আক্রমণে যেতে থাকে। মাঝমাঠে সংঘবদ্ধ ফুটবল খেললেও, দু’দলই খেই হারিয়ে ফেলে বক্সে গিয়ে। বক্স টু বক্স ফুটবল হলেও প্রকট হলো দু’দলের ফিনিশার না থাকা। এর মধ্যেই প্রথমার্ধের ৩২ মিনিটের মাথায় মডরিচের কর্ণার থেকে রিফ্লেক্টেড হওয়া বল নাইজেরীয় ডিফেন্ডার এটেবোর পায়ে লেগে জালে জড়িয়ে যায়। আত্মঘাতী গোলে এগিয়ে থেকেই প্রথমার্ধ শেষ করে ক্রোয়েশিয়া।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই আক্রমণে ঝাঁপায় সুপার ঈগলরা। নাইজেরীয় মাঝমাঠের মূল স্তম্ভ চেলসি তারকা ভিক্টর মোসেস বেশ কিছু সিচুয়েশন তৈরি করেন ক্রোয়েশীয় বক্সে। কিন্তু গোল করার কেউ ছিলেন না। দ্বিতীয়ার্ধের প্রথম কোয়ার্টারের পর আবার মাঝমাঠের দখল নিয়ে নেন হাসান স্যাস, হাকান সুকেরদের উত্তরসূরীরা। ৭১ মিনিটের মাথায় পেনাল্টি পায় ক্রোয়েশিয়া। নাইজেরীয় গোলকিপারকে বাঁদিকে ফেলে তাঁর ডান দিক দিয়ে বল জালে জড়িয়ে ২-০ করেন মডরিচ।

মেসি, আগুয়েরা, ডি মারিয়াদের পরের ম্যাচে নামতে হবে ক্রোয়েশিয়ার বিরুদ্ধেই। নামতে হবে ২ পয়েন্টে পিছিয়ে থেকে। রাউন্ড অফ সিক্সটিনে যাওয়ার ক্ষেত্রে ওই ম্যাচ জিততেই হবে মেসিদের।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More