শুক্রবার রাত থেকে দেশের কোন কোন শহরে লকডাউন! দেখে নিন তালিকা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: নাইট কার্ফু জারি হয়েছিল আগেই। কিন্তু তেমন আশাব্যঞ্জক ফল মেলেনি৷ আজ শুক্রবার। কাজের জায়গাগুলি অধিকাংশই সপ্তাহশেষের দু’দিন বন্ধ থাকে। একথা মাথায় রেখে আজ সন্ধ্যা থেকেই ফের লকডাউনের পথে হাঁটতে চলেছে মহারাষ্ট্র, মধ্যপ্রদেশ ছত্তিশগড় সহ একাধিক রাজ্য। ইতিমধ্যে এই রাজ্যগুলির একাধিক শহরে কড়া নিয়ম জারি করা হয়েছে।

যদিও আকস্মিক নয়৷ সপ্তাহের গোড়াতেই লকডাউনের একটা ইঙ্গিত মিলেছিল। সোমবার থেকেই মুম্বইতে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে আক্রান্তের সংখ্যা। বুধবার সেটাই চরম আকার নেয়। ওইদিন দেশজুড়ে রেকর্ড সংখ্যক করোনা আক্রান্তের খবর আসে। নাইট কার্ফু জারি করেও আমজনতার অবাধ গতিবিধি পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে আনা যায়নি৷ তাই এবার সপ্তাহান্তিক লকডাউনের ব্যবস্থা নিল মহারাষ্ট্র সরকার।

নয়া নির্দেশিকায় সোমবার সকাল ৮টা পর্যন্ত কার্ফু জারির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে৷ যদিও সর্বোচ্চ পাঁচজন সকাল ৭টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত রাস্তায় বেরোতে পারবেন। এই নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ভিড় ঠেকাতে বার, রেস্তোরাঁ, মল বন্ধ রাখা হবে বলেও খবর।

বুধবার বৃহন্মুম্বই পুরসভা এবং মুম্বই পুলিশ যৌথভাবে গাইডলাইন জারি করে৷ আপাতত সারা সপ্তাহ ধরেই দোকান, বাজার নির্ধারিত সময়ের জন্য খোলা থাকবে৷ সমুদ্র সৈকতে ঘুরে বেড়ানোর ক্ষেত্রেও কড়াকড়ি আনা হচ্ছে। আগামী ৩০ এপ্রিলের জন্য বিখ্যাত মুম্বই বিচ পুরোপুরি বন্ধ থাকবে৷

একইভাবে লকডাউনের পথে হেঁটেছে মধ্যপ্রদেশ সরকার। রাজ্যের সমস্ত শহর শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে সোমবার সকাল ৬টা পর্যন্ত লকডাউনের ঘেরাটোপে চলে যাচ্ছে৷ গত তিন সপ্তাহ ধরে ভোপাল, ইন্দোর, জব্বলপুর এবং গোয়ালিয়রে শুধুমাত্র রবিবার লকডাউন জারি করা হয়েছিল। এবার সেটাই পরপর দু’দিন ধরে বজায় থাকবে।

মধ্যপ্রদেশ ছাড়া ছত্তিশগড়েও আনা হয়েছে কড়াকড়ি। রায়পুর ইতিমধ্যে কন্টেইনমেন্ট জোন হিসেবে চিহ্নিত৷ আজ সন্ধ্যা থেকে শহরের সীমান্ত সিল করা হচ্ছে। আগামী ১০দিন লকডাউনের আওতায় থাকবে রায়পুর। বন্ধ থাকবে ব্যাঙ্ক সহ অধিকাংশ সরকারি-বেসরকারি অফিসও।

পিছিয়ে নেই কর্ণাটকও। শিল্পনগরী ব্যাঙ্গালুরুতেও আগামী ৯ এপ্রিল থেকে লকডাউন চালু হচ্ছে।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More