নিজে খেতে পারেন না কিছুই, তবু রেঁধেই সকলের মন জয় করছেন তরুণী শেফ

দ্য ওয়াল ব্যুরো: তাঁর হাতের রান্না খেয়ে মুগ্ধ হন মানুষ। সোশ্যাল মিডিয়াতেও তাঁর ফলোয়ার সংখ্যা অজস্র। কিন্তু নেট পাড়ায় সাড়া ফেলে দেওয়া বিখ্যাত এই শেফের আসল গল্পটা জানলে মন খারাপ হতে বাধ্য। নিজে যতই ভাল রান্না করুন, আদতে কোনও খাবারই খেতে পারেন না লরেটা হার্মেস। কখনওই পারবেন না।

কারণটা হল জিনগত এক রোগ। রোগটির নাম ‘এলার্স ড্যানলস সিনড্রোম’। দুরারোগ্য এই অসুখের সঙ্গেই লড়াই করছেন ব্রিটেনের শেফ লরেটা হার্মেস। বিশেষ কিছু তরল খাবারই তাঁর একমাত্র সম্বল।

কিন্তু তাই বলে অসুখের কারণে নিজের রাঁধার ইচ্ছেকে কবর দেননি লরেটা। নিত্যনতুন রান্না করে সকলকে তাক লাগিয়ে দেওয়ার শখ তাঁর বরাবরের। তাই নিজে খেতে না পারলেও রান্না করেন লরেটা। রোজ রোজ তাঁর নিত্যনতুন রান্নার রেসিপির জন্য অপেক্ষা করে থাকেন ভক্তরা। সোশ্যাল মিডিয়াই এখন হয়ে উঠেছে লরেটার ইচ্ছাপূরণের একমাত্র সঙ্গী।

আন্তর্জাতিক সংবাদসংস্থা বিবিসি-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ২৩ বছর বয়সি লরেটা হার্মেস জানিয়েছেন, শেষবার ৬ বছর আগে শক্ত খাবার খেয়েছিলেন তিনি। আর সেটা ছিল রোস্ট পোট্যাটো। তারপর আর কিছুই খাওয়া হয়নি, হয়তো ভবিষ্যতেও আর হবে না। “কিছু খেলেই আমার পেটে অসহ্য যন্ত্রণা হত। পরিস্থিতি দ্রুত খারাপ হচ্ছিল। আমি না কিছু খেতে পারতাম, না টয়লেটে যেতে পারতাম। তার পরের পাঁচটা বছর যেন দুঃস্বপ্নের মতো ছিল।”

ঠিক কী হয় এই ‘এলার্স ড্যানলস সিনড্রোম’-এ? চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, এটি মোট ১৩টি অস্বাভাবিক অবস্থার একটা সমষ্টি। এতে পেটের ভিতরে পাকস্থলী আংশিক ভাবে অবশ হয়ে যায়। ফলে খাবার হজম হতে পারে না। তবে লরেটার কষ্ট আরও বেড়ে যায় ভুল চিকিৎসার কারণে। বহু বার একাধিক ডাক্তারের দ্বারা ভুল পথে চালিত হয়েছেন তিনি। ছোট থেকে সবরকম খাবার খেতে পারলেও বয়স যত বাড়তে থাকে, সমস্যা ততই জাঁকিয়ে বসে লরেটার শরীরে। না খেতে খেতে একসময় তাঁর ওজন ২৫ কেজিরও কম হয়ে গিয়েছিল বলে জানিয়েছেন লরেটা।

সোশ্যাল মিডিয়ায় সমাদর পেয়ে অবশ্য নিজের শারীরিক কষ্ট আর মনে রাখছেন না লরেটা। ইনস্টাগ্রামে তিনি লিখেছেন, “আমি এখনও ভাবতে পারছি না আমার গল্প চারিদিকে ছড়িয়ে পড়েছে। সবার ভালবাসা পেয়ে আমার খুব ভালো লাগছে। আমার মায়ের জন্যেই এটা সম্ভব হয়েছে। সকলকে অনেক ধন্যবাদ।”

জানা গেছে, বর্তমানে টোটাল প্যারেন্টেরাল নিউট্রিশনের মাধ্যমে খান লরেটা। দিনে অন্তত ১৮ ঘণ্টা তাঁকে খাওয়াতে হয়। মুখ দিয়ে নয়, নলের মাধ্যমে তাঁর দেহে খাবার ঢোকানো হয়। এমনকি জলটুকুও হয়তো আর কখনও খেতে পারবেন না লরেটা হার্মেস।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More