উত্তরপ্রদেশে একদিনে আক্রান্ত প্রায় ১৩ হাজার, ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড সংক্রমণ

দ্য ওয়াল ব্যুরো : শুক্রবার উত্তরপ্রদেশে করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন ৯৬৯৫ জন। শনিবার এক লাফে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১২ হাজার ৭৮৭। অতিমহামারী শুরু হওয়ার পরে আর কখনও ২৪ ঘণ্টায় এত বেশি মানুষ সংক্রমিত হননি। এদিন করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছেন ৪৮ জন। ভারতের সবচেয়ে জনবহুল ওই রাজ্যে এখন অ্যাকটিভ রোগীর সংখ্যা ৫৮ হাজার ৭৯৯। সুস্থ হয়ে ওঠার হার ৯০ শতাংশ।

উত্তরপ্রদেশের রাজধানী লখনউতে শুক্রবার করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন ৪০৫৯ জন। ওই শহরে আর কখনও এত বেশি মানুষ কোভিডে আক্রান্ত হননি। এদিন শহরে মারাও গিয়েছেন ২৩ জন করোনা রোগী।

রাজ্যের করোনা পরিস্থিতি খতিয়ে দেখার জন্য শনিবার গোরখপুরে বৈঠকে বসেন মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। আগামী সপ্তাহে তিনি অতিমহামারী নিয়ে সর্বদলীয় বৈঠক ডাকবেন। সেই সঙ্গে নতুন করে কয়েকটি বিধিনিষেধও জারি হতে পারে বলে জানা গিয়েছে।

উত্তরপ্রদেশে আপাতত নাইট কার্ফু জারি হয়েছে নয়ডা, এলাহাবাদ, মিরাট, বেরিলি ও গাজিয়াবাদে। স্কুলে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত ক্লাস হচ্ছে না। রাজ্যে এখনও পর্যন্ত ৮১ লক্ষ মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে। তাঁদের মধ্যে ৬৯ লক্ষ মানুষ নিয়েছেন প্রথম ডোজ। ১১ লক্ষ নিয়েছেন দু’টি ডোজই। যোগী আদিত্যনাথ প্রশাসনের শীর্ষস্থানীয় অফিসারদের নির্দেশ দিয়েছেন, লখনউ, এলাহাবাদ, বারাণসী, কানপুর, গাজিয়াবাদ, গোরখপুর, মোরাদাবাদ ও সাহারানপুর জেলায় বয়স্কদের যেন অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে টিকা দেওয়া হয়। টিকাকরণের সময় ভ্যাকসিনের অপচয় যথাসম্ভব রোধ করারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আগামী ১১ থেকে ১৪ এপ্রিল অবধি দেশ জুড়ে ‘টিকা উৎসব’ পালনের ডাক দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ওই সময় যত বেশি সম্ভব মানুষকে টিকা দেওয়ার চেষ্টা করা হবে। উত্তরপ্রদেশে যাতে টিকা উৎসব সফল হয়, সেজন্য অফিসারদের অ্যাকশন প্ল্যান বানানোর নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More