রুদ্রনীল ঘোষের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার অভিযোগ, তোলপাড় সোশ্যাল মিডিয়া

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সময়টা ভাল যাচ্ছে না রুদ্রনীল ঘোষের। একে হারের গ্লানি, তার উপর দলবদল নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় নিত্য কটাক্ষ লেগেই আছে। কিন্তু এবারের অভিযোগ বেশ গুরুতর। হাসি ঠাট্টার মাত্রা ছাড়িয়ে এবার বিজেপি নেতা রুদ্রনীল ঘোষের বিরুদ্ধে উঠল যৌন হেনস্থার অভিযোগ।

অভিযোগকারিনীর নাম নীলাঞ্জনা পান্ডে। মঙ্গলবার রাতে নিজের ফেসবুকের দেওয়ালে একটি পোস্ট করেন তিনি। তাতেই ছিল টলিউড অভিনেতা রুদ্রনীল ঘোষের বিরুদ্ধে চাঞ্চল্যকর অভিযোগ। নীলাঞ্জনা স্পষ্টই জানান, “আমি সবচেয়ে বেশি খুশি হয়েছি রুদ্রনীল ঘোষের হারে।” প্রায় ৯ বছর আগের এক ঘটনার কথা এরপর তিনি লেখেন।

পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে মিলিত ভাবে একসময় একটি প্রোডাকশন হাউজ চালাতেন রুদ্রনীল ঘোষ। অভিযোগ, সেখানে কাজ করতে গেলে তরুণীকে যৌন হেনস্থা করেন অভিনেতা। বারবার নাকি তাঁকে বাড়িতে ডাকতেন রুদ্রনীল। তাঁর মোবাইলে অশ্লীল মেসেজও নাকি পাঠান তিনি। যদিও এর কোনও প্রমাণ আজ আর নেই, কারণ “ঘৃণাবশতঃ” সেই নোংরা মেসেজ তিনি ফোন থেকে মুছে দিয়েছিলেন।

রুদ্রনীল ঘোষের প্রোডাকশন হাউজ থেকে নিজের পাওনা টাকাও পাননি বলে দাবি করেছেন নীলাঞ্জনা।

তখন কিছু না বলে কেন এখনই ঘটনা সামনে আনলেন? নিজেই প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন তিনি। লিখেছেন, “আজ প্রশ্ন উঠতে পারে, কেন সেদিন বিচার চাইনি? আসলে তখন ভয় পাইনি, কিন্তু বিচারের জন্য একজন নিউকামারকে কিভাবে এগোতে হবে জানতাম না।”

যদিও গোটা ঘটনায় রাজনৈতিক চক্রান্তের গন্ধ পাচ্ছেন রুদ্রনীল ঘোষ। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “এ ধরনের ঘটনা সম্পূর্ণ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। এখন যাই হচ্ছে, তার সঙ্গে রাজনীতি জড়িয়ে।’’ এতদিন যে ইন্ডাস্ট্রিতে তাঁর বিরুদ্ধে এই ধরনের কোনও অভিযোগ ওঠেনি, এদিন তাও মনে করিয়ে দেন গেরুয়া নেতা। তাঁর কথায়, ‘‘আজকেই কেন? এখানেই সব স্পষ্ট হয়ে গেল। রাজনৈতিক অভিসন্ধি রয়েছে।’’

ফেসবুকের দেওয়ালে নীলাঞ্জনা জানিয়েছেন, তিনি সত্যি কথা বলছেন। তাই আইনের ভয় নেই তাঁর। তিনি আরও লেখেন, “এই পোস্টের কথা জানার পর তুমি সাইবার ক্রাইম সেলে যাও, আমার বিরুদ্ধে মামলা করো, আমি সেসবের পরোয়া করি না। কিন্তু মনে রেখো, এই তোমার পতনের শুরু।” গোটা ঘটনায় যথেষ্ট শোরগোল শুরু হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

Leave a comment

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More