বিশ্বে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ৩ লক্ষের মধ্যে ১ লক্ষই সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন

ভারতে এই মুহূর্তে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৪৭১ জন। তার মধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩৪ জন। ইতিমধ্যেই দেশের ৩০ টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে সম্পূর্ণ লকডাউনের ঘোষণা করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে ট্রেন ও ঘরোয়া বিমান পরিষেবা। বিদেশ থেকে আসা বিমানে নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছে। মানুষকে ঘর থেকে বেরাতে নিষেধ করা হয়েছে।

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বিশ্বজুড়ে মহামারীর আকার নিয়েছে নোভেল করোনাভাইরাস। প্রতিনিয়ত বেড়েই চলেছে আক্রান্তের সংখ্যা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, প্রথম ১ লক্ষ আক্রান্ত হতে সময় লেগেছিল ৬৭ দিন। পরের ১ লক্ষের ক্ষেত্রে তা কমে দাঁড়ায় ১১ দিন। তারপরের ১ লক্ষ মানুষ মাত্র ৪ দিনে আক্রান্ত হয়েছেন। এই আশঙ্কার মধ্যেও কিন্তু দেখা যাচ্ছে আশার আলো। কারণ, ইতিমধ্যেই এই ভাইরাস কবল থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১ লক্ষেরও বেশি মানুষ।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসেব অনুযায়ী, এখনও পর্যন্ত করোনাভাইরাসে পৃথিবীতে আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লক্ষ ৭২ হাজার ৫৫৭ জন। তার মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ১৬ হাজার ৩১২ জনের। অর্থাৎ মৃত্যুর পরিমাণ মোট আক্রান্তের ৪ শতাংশের একটু বেশি। আর এই ভাইরাসের কবল থেকে ইতিমধ্যেই সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১ লক্ষ ১ হাজার ৩৭১ জন। এই পরিমাণ আক্রান্তের হিসেবে ২৭ শতাংশের বেশি। অর্থাৎ প্রতি চার জন আক্রান্তের মধ্যে একজন সুস্থ হয়ে উঠেছেন।

এখনও পর্যন্ত যেমন সবথেকে বেশি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে চিন, তেমনই সবথেকে বেশি সুস্থ হয়েছে সেই দেশেই। চিনে ৮১ হাজার ০৯৩ জনের মধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৭২ হাজার ৭০৩ জন। মৃত্যু হয়েছে ৩ হাজার ২৭০ জনের। ইতালিতে ৬৩ হাজার ৯২৭ জন আক্রান্তের মধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছে ৭ হাজার ৪৩২ জন। মৃত্যু হয়েছে ৬ হাজার ৭৭ জনের। এছাড়া ইরানে ৮ হাজার ৩৭৬, স্পেনে ৩ হাজার ৩৫৫, দক্ষিণ কোরিয়াতে ৩ হাজার ১৬৬ ও ফ্রান্সে ২ হাজার ২০০ জন ইতিমধ্যেই সুস্থ হয়ে উঠেছেন।

করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা গুণত্তর প্রগতিতে বাড়ায় একদিকে যেমন আশঙ্কা, অন্যদিকে তেমনই এই সুস্থ হয়ে ওঠার সংখ্যায় আশার আলো দেখছেন চিকিৎসকেরা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানাচ্ছে, সোশ্যাল ডিসট্যান্সিং করতে পারলেই এই ভাইরাসের হাত থকে রক্ষা পাওয়া যায়। চিন সেটা করে দেখিয়েছে। সেই পথেই এগোচ্ছে ইতালি, আমেরিকা, ফ্রান্স-সহ বিশ্বের বেশিরভাগ দেশ।

ভারতে এই মুহূর্তে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৪৭১ জন। তার মধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩৪ জন। ইতিমধ্যেই দেশের ৩০ টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে সম্পূর্ণ লকডাউনের ঘোষণা করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে ট্রেন ও ঘরোয়া বিমান পরিষেবা। বিদেশ থেকে আসা বিমানে নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছে। মানুষকে ঘর থেকে বেরাতে নিষেধ করা হয়েছে। অর্থাৎ হু-এর দেখানো পথেই এগিয়ে চলেছে ভারতও।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More