হ্যাঁ, আমাদের এখন সুপার স্প্রেডার ধর্না প্রয়োজন, বিজেপিকে কটাক্ষ শিবসেনার

দ্য ওয়াল ব্যুরো : ভোটের পরে পশ্চিমবঙ্গে হিংসার বিরুদ্ধে ৫ মে দেশ জুড়ে ধর্নায় বসছে বিজেপি। সোমবার রাতে বিজেপির এই কর্মসূচিকে কটাক্ষ করল শিবসেনা। দলের সাংসদ প্রিয়ঙ্কা চতুর্বেদী টুইট করে বলেন, বিজেপি মনে করে এখনও দেশে যথেষ্ট সংখ্যায় কোভিড সংক্রমণ হয়নি। তাই এখন সুপার স্প্রেডার ধর্না চাই। বিজেপি নেতারা অবশ্য আগেই জানিয়েছিলেন, কোভিড বিধি মেনেই তাঁরা ধর্নায় বসবেন।

সোমবার সকালে জানা যায়, তার আগের ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ লক্ষ ৬৮ হাজার মানুষ। মারা গিয়েছেন ৩৪০০ জনের বেশি। দেশে এখন অ্যাকটিভ কোভিড রোগীর সংখ্যা ৩৪ লক্ষ ১০ হাজার। ভোটের আগে পশ্চিমবঙ্গে ও অন্যান্য রাজ্যে জনসভা করার ফলে কোভিড সংক্রমণ বেড়েছে।

এবার ভোটে পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূলকে সমর্থন করেছিল শিবসেনা। সোমবার শিবসেনার মুখপত্র ‘সামনা’-র সম্পাদকীয়তে মন্তব্য করা হয়েছে, কোভিড অতিমহামারীর সঙ্গে লড়াই করার বদলে পুরো কেন্দ্রীয় সরকার ঝাঁপিয়ে পড়েছিল পশ্চিমবঙ্গে। বাদ যাননি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও। তাঁরা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে হারাতে চেয়েছিলেন। পরে লেখা হয়েছে, পশ্চিমবঙ্গে ভোটের ফল প্রমাণ করল, নরেন্দ্র মোদী বা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ অপরাজেয় নন।

‘সামনা’-র সম্পাদকীয়তে বলা হয়েছে, পশ্চিমবঙ্গে ভোট হয়েছিল আট দফায়। বিজেপি টাকা, ক্ষমতা ও প্রশাসনকে ব্যবহার করে মমতাকে হারাতে চেয়েছিল। ভোটের ফলাফলকে এক লাইনে ব্যাখ্যা করে সম্পাদকীয়তে বলা হয়েছে, ‘বিজেপি হেরেছে, করোনা জিতেছে।’ শিবসেনার অভিযোগ, ভোটে জেতার জন্য নরেন্দ্র মোদী এবং অমিত শাহ বড় জনসভা করেছেন। রোড শো করেছেন। শিবসেনার প্রশ্ন, বিজেপির পরাজয়ের দায় কে নেবে?

পর্যবেক্ষকদের মতে, পশ্চিমবঙ্গের মসনদ দখলের লড়াইয়ে আদাজল খেয়ে লেগেছিল গেরুয়া শিবিরের কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। বাংলায় মোট ২২টি জনসভা করার কথা ছিল শুধুমাত্র নরেন্দ্র মোদীরই। ১২ বার রাজ্য সফরে আসার কথা ছিল তাঁর। যদিও শেষ দিকে কোভিডের বাড়বাড়ন্তের কারণে প্রধানমন্ত্রীর বেশ কিছু সফর বাতিল হয়ে যায়। ২২ গিয়ে ঠেকে ১৮-তে। ভার্চুয়াল মাধ্যমেও বেশ কিছু বক্তৃতা পেশ করেন মোদী।

আর শুধু তো নরেন্দ্র মোদী নন, বাংলার প্রচারে সময় দিয়েছিলেন অমিত শাহ, স্মৃতি ইরানি, রাজনাথ সিং, জেপি নাড্ডা, কৈলাশ বিজয়বর্গীয় এমনকি যোগী আদিত্যনাথও।

ভোটের ফল বেরোনর পর রাত থেকেই হিংসার খবর আসছে কলকাতা সহ রাজ্যের নানা প্রান্ত থেকে। সোমবার তৃণমূলের হামলা নিয়ে সরব হলেন সিপিএম নেত্রী ঐশী ঘোষ। ভোটের আগে টালিগঞ্জের যে শিল্পীদের রাজনীতি নিয়ে তেমন মুখ খুলতে দেখা যায়নি, তাঁদের কেউ কেউ এবার হিংসা বন্ধের আবেদন জানিয়েছেন।

পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায় ‘স্টপ পোস্ট পোল ভায়োলেন্স’ হ্যাশট্যাগ দিয়ে টুইট করেছেন সোমবার রাতে। তিনি লিখেছেন, সিপিএমের পার্টি অফিস জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে। রেড ব্রিগেডের যে সদস্যরা কোভিডের বিরুদ্ধে অক্লান্ত লড়াই চালাচ্ছিলেন, তাঁদেরও আক্রমণ করা হয়েছে। বিজেপি কর্মীদের মারধর করা হচ্ছে। অনেকে খুন হচ্ছেন। এ আবার কী ধরনের বিজয় উৎসব! এই হিংসার তীব্র নিন্দা করছি।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More